Saturday , August 24 2019

হঠাৎ আরবের আকাশে রহস্যময় গোল ‘ছিদ্র’ (ভিডিও সহ)

আকাশের গায়ে নাকি টকটক গন্ধ?’– এহেন অভিনব আবিষ্কারে দিশেহারা সুকুমার রায়ের ‘সীতানাথ বন্দ্যো’ গত সপ্তাহ শেষের আরব আমির শাহির আল আইন অঞ্চলের আকাশ দেখলে কী বলতেন সেটা এখন আর জানা সম্ভব নয়।

কিন্তু সে অঞ্চলের বাসিন্দারা যে কিছুক্ষণের জন্য হলেও ভেবে ফেলেছিলেন ‘এইবার মাথায় আকাশ ভেঙে পড়তে চলেছে!’– সে বিষয়ে বিশেষ সন্দেহ নেই।

রবিবারের প্রবল বৃষ্টিপাতের পর হঠাৎই আরবের আল আইন অঞ্চলের স্থানীয় মানুষ আকাশের গায়ে দেখতে পান এক বিশাল গর্ত। সে গর্তও নিশ্চল নয়, তার মধ্যে যেন রয়েছে ঘুর্ণীর আভাস!

আকাশে এমন গোলক দেখে প্রত্যক্ষদর্শীরা বিভ্রান্ত হয়ে পড়েছেন। বিশাল রহস্যময় এই গোলকের ভিডিও এরই মধ্যে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে।

ইব্রাহিম আল জারওয়ান নামের একজন প্রথম ভিডিওটি টুইটারে পোস্ট করেন। গোলককে তিনি বলেছেন, ‘ঘূর্ণি ছিদ্র’ হিসেবে।

ইব্রাহিম লিখছেন, বিরল-সুন্দর ঘটনাটি দেখা গেছে আল আইন শহরের ভোরের আকাশে। কৌতূহলী কারো কারো কাছে এটিকে মনে হয়েছে ভিনগ্রহের যান।

লাগামহীন আতঙ্ক ও কল্পনা উড়ান দেওয়ার আগেই শারজার মহাকাশ ও আবহাওয়া বিশেষজ্ঞ ইব্রাহিম আল জারওয়ান টুইট করে জানিয়ে দেন এমন ঘটনা খুব বিরল হলেও অসম্ভব কিছু নয়।

আবহাওয়াবিদরা জানাচ্ছেন, যখন মেঘের তাপমাত্রা হিমাঙ্কের নিচে নেমে যায়, অথচ মেঘে থাকা পানি বরফ না-হয়ে প্রচণ্ড ঠান্ডা অবস্থায় থাকে,

আইস নিউক্লেশনের অভাবে বরফ হতে পারে না, তখনই এমন রহস্যজনক গোলক তৈরি হয়।

আবহাওয়াবিদরা এই গোলককে বলছেন, ফলস্ট্রিক হোল। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় আবহাওয়া পরিষেবা দফতরের ওয়েবসাইটের তথ্য অনুযায়ী, ‘ফলস্ট্রিক হোল’ মেঘপুঞ্জের একটি বিরল ও আশ্চর্য নির্মাণ।

মেঘের স্তর অতি উচ্চতায় পৌঁছে গেলে মেঘের জলবিন্দুর তাপমাত্রা হিমাঙ্কের নীচে চলে গেলেও বরফে পরিণত হয় না। তখনই এই ধরনের গহ্বর তৈরি হওয়ার সম্ভাবনা দেখা যায়। যখন এই ধাঁচের

গহ্বর মেঘের মধ্যে তৈরি হয় তখন মনে হয় কোনও মহাকাশ যান যেন নেমে আসতে চলেছে পৃথিবীর বুকে।