Saturday , August 24 2019

ফেসবুক স্টাটাসে ক্রাইস্টচার্চের মতো ভারতেও হামলার আহ্বান, অতঃপর…

গত শুক্রবার নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের আল নুর মসজিদ ও লিনউড মসজিদে উগ্রবাদী শ্বেতাঙ্গ জঙ্গি ব্রেন্টন টরেন্টের নৃশংস হামলায় ৫০জন মুসলিম শহীদ হয়েছেন।

এদিকে শোক-শ্রদ্ধা আর কান্নার থমথমে পরিবেশের মধ্যেই শুরু হয়েছে নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চ মসজিদে হামলায় নিহতদের দাফন। দেশটির ইতিহাসে সবচেয়ে ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলার পাঁচ দিন পর বুধবার নিহত স্বজনদের কবরে শুইয়ে দেয় দুঃখভারাক্রান্ত পরিবারগুলো।

আর ঠিক এমন সময় নিউজিল্যান্ডের সন্ত্রাসবাদী হামলার সেলিব্রেট করতে ফেসবুকে এক স্টাটাসে ভারতেও হামলার আহ্বান জানিয়েছে দুবাইয়ের এক যুবক। এ ঘটনায় ওই যুবককে আটক করা হয়েছে।

এছাড়া দুবাইয়ের ট্রান্সগার্ড সিকিউরিটি কোম্পানিতে কর্মরত ওই যুবককে বরখাস্ত করেছে সংস্থা। কোম্পানি সূত্রে খবর, রনি রায় নামে ভুয়া অ্যাকাউন্ট খুলে ওই বিতর্কিত পোস্ট করেছেন যুবক।

ফেসবুক পোস্টে তিনি লিখেছেন, “আজ সুখের দিন। পুলওয়ামার শহিদদের আত্মা শান্তি পাবে। প্রতি শুক্রবার নামাজের সময় ভারতেও এমনটা হওয়া উচিত।”

নুর আল মসজিদে স্বয়ংক্রিয় রাইফেল নিয়ে হামলার করার ঘটনা ফেসবুকে লাইভ স্ট্রিম করে ব্রেন্টন ট্যারান্ট। ফেসবুকে ক্রাইস্টচার্চে ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলার ভিডিও সরাসরি সম্প্রচারের পর থেকে তা ব্যাপকভাবে শেয়ার হয় অনলাইনে। সেই সহিংস ভিডিও ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে রীতিমতো হিমশিম খেতে হয় ফেসবুক,

ইউটিউব ও টুইটারের মতো কর্তৃপক্ষকে। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ১৫ লাখ ভিডিও সরিয়ে ফেলা হয়েছে বলেও জানায় ফেসবুক। ক্ষোভ প্রকাশ করেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীও।

এরপর থেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় মসজিদ হামলা নিয়ে কোনও রকম বিতর্কিত পোস্টের উপর কড়া নজরদারি চালানো হচ্ছে। মসজিদে হামলা ও সেই হামলা সরাসরি সম্প্রচারের প্রতিবাদে ফেসবুক ও গুগল থেকে বিজ্ঞাপন প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে নিউজিল্যান্ডের বড় কয়েকটি বহুজাতিক সংস্থা। দুবাইয়ের এই যুবকের পোস্টটিও ব্যাপকভাবে শেয়ার হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

ট্রান্সগার্ড কোম্পানির তরফে বিবৃতি দিয়ে জানান হয়েছে, “বিতর্কিত ওই পোস্টটি সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। যুবকের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু হয়েছে। চরমপন্থাকে প্রশ্রয় দেয় এমন কোনও কাজই বরদাস্ত করা হবে না।” সূএঃসময়ের কণ্ঠস্বর