Tuesday , December 10 2019

এবার আন্দোলনকারীদের মুখোমুখি ভিসি পন্থীদের অবস্থান

দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলামকে অপসারণের দাবিতে তার বাসভবন অবরুদ্ধ করে রেখেছে আন্দোলনরত শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। অন্যদিকে উপাচার্যপন্থী শিক্ষকরাও ভিসির বাসভবনের সামনে অবস্থান নিয়েছেন। ফলে মুখোমুখি অবস্থানে আন্দোলনকারী ও ভিসিপন্থী শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ।

খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, উপাচার্য ও কয়েকজন শিক্ষক বাসার ভেতরে অবস্থান করছেন ও অর্ধ শতাধিক শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারী বাসার মূল ফটকে অবস্থান নিতে দেখা গেছে।

উল্লেখ্য, সোমবার (৪ নভেম্বর) সন্ধ্যায় ‘উপাচার্য অপসারণ মঞ্চ’ থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে উপাচার্যের বাসভবনের মূল ফটকে অবস্থান নেন আন্দোলনকারীরা।

আন্দোলকারী ও “দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর” এর আহ্বায়ক এবং দর্শন বিভাগের অধ্যাপক রায়হান রাইন বলেন, দুর্নীতিবাজ উপাচার্যকে অবরুদ্ধ করা হয়েছে। যতক্ষণ পর্যন্ত উনি অপসারিত না হবেন ততোক্ষণ পর্যন্ত অবরুদ্ধ থাকবেন।

উপাচার্যের বাসভনের সামনে অবস্থান নেওয়া উপাচার্যপন্থী শিক্ষক ও ইতিহাস বিভাগের অধ্যাপক আতিকুর রহমান আতিকের কাছে প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে বলেন, আমি কোনো প্রতিক্রিয়া জানাবো না। সাংবাদিকদের একটা বক্তব্যে দিলে তারা উল্টোটা লেখে দেয়।

প্রক্টর আ স ম ফিরোজ উল হাসান বলেন, আমরা আন্দোলনকারী মূল ফটক ছাড়ার অনুরোধ করেছি। আমি বলেছি আন্দোলন ও আলোচনা একসাথে চলতে পারে না। নিরাপত্তার খাতিরে পুলিশ ও প্রশাসন সতর্ক অবস্থানে আছে বলে তিনি জানান। উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলামের বক্তব্যে নেয়ার চেষ্টা করা হলে তাঁর মুঠোফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

এদিকে আন্দোলনকারীরা বলেছেন, স্বৈরাচার ও দুর্নীতিবাজ উপাচার্যকে পদত্যাগে বাধ্য না করা পর্যন্ত বাসা ত্যাগ করবো না। এসময় আন্দোলনকারীদের ‘ছি ছি ফারজানা, লজ্জায় বাঁচি না, যেই হাত দুর্নীতি করে সেই হাত ভেঙ্গে দাও বলে স্লোগান দিতে দেখা যায়।

এর আগে দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে ‘যেকোনো সময়’ অধ্যাপক ফারজানা ইসলামকে অবরুদ্ধ করার ঘোষণা দেন ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর’র মুখপাত্র অধ্যাপক রায়হান রাইন।