Tuesday , July 16 2019

ক্ষমতায় থেকেও বঙ্গবন্ধু ও জিয়াউর রহমানের নামে হোস্টেল নির্মাণ করেছিলেন এরশাদ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং জিয়াউর রহমানের নামে দুটি হল নির্মাণ করেছেন হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ অথচ নিজের নামে কোনো হোস্টেল নির্মাণ না করেননি। এমন দৃষ্টান্ত খুবই কম দেখা যায়। সাধারণত নিজের নাম কিংবা আত্মীয় স্বজনের নামেই বেশিরভাগ সময় স্থাপনা নির্মাণ করেন ক্ষমতাসীনরা। সেক্ষেত্রে এরশাদ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এ দুটি হল নি*র্মাণ করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেন।

এছাড়া তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিবহন ব্যবস্থারও উন্নয়ন ঘটান। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য দোতলা বাসসহ অতিরিক্ত বাসের ব্যবস্থা করেন।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত রেললাইন সম্প্রসারণ করেন। `পে অ্যাজ ইউ আর্ন` প্রকল্পে স্কুটার বরাদ্দ দিয়ে ছাত্রদের সম্পূরক আয়ের ব্যবস্থা করেন।

শিক্ষা ক্ষেত্রে তার অবদান অপরীসিম। শিক্ষার মান উন্নয়নে তিনি ব্যাপক কাজ করেছেন। কারিগরি শিক্ষা উন্নয়নে নানা কর্মসূচি নেন হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ। প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগে ৫০ শতাংশ নারীদের জন্য সংরক্ষণ করেন। মেয়েদের জন্য পৃথক ক্যাডেট কলেজ প্রতিষ্ঠা করেন।

আর্ন্তজাতিক ভাষা ইংরেজি বিষয়ে বাংলাদেশিদের দূর্বলতা কাটাতে প্রথম থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত ইংরেজি শিক্ষা বাধ্যতামূলক করেন এরশাদ।

এরশাদের মৃ**ত্যুতে যা বললেন নায়ক সোহেল রানা

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ মা**রা গেছেন। আজ রোববার সকাল পৌনে ৮টার দিকে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যা*গ করেন।

তার মৃ**ত্যুতে শোক জানিয়েছেন জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও বাংলা চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় নায়ক মাসুদ পারভেজ ওরফে সোহেল রানা।

সোহেল রানা বলেছেন, কি বলবো, বুঝতে পারছি না। কথা বলার মন-মানসিকতাও নেই। সকাল বেলায় এমন একটি সংবাদ শুনবো ভাবিনি। চেয়ারম্যানের মৃ**ত্যুর খবর শুনে বাক*রু*দ্ধ হয়ে পড়েছি।

দীর্ঘ দিন থেকেই জাতীয় পার্টির সঙ্গে যু*ক্ত রয়েছেন জনপ্রিয় অভিনেতা সোহেল রানা। দলটির দুর্দিনেও পাশে থেকে সাহস জুগিয়ে এসেছেন সব সময়। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বরিশাল-২ আসন থেকে জাতীয় পার্টির প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনও করেছিলেন সোহেল রানা।