ফেরি করে দুধ বিক্রিতা থেকে বিশ্বকাপে!

নিক পোপের এ পর্যন্ত আসার পথটি মোটেই সহজ ছিল না! ২০০৮ সালে ইপসউইচ টাউওনের যুব খেলার সুযোগ পান তিনি। স্বপ্ন দেখতেন ইংলিশ সাবেক গোলরক্ষক রিচার্ড রাইটের মতো হওয়ার। পোপ নিজেই বলেন, রিচার্ড রাইট আমার আদর্শ । তিনি অনেকের মধ্যে অন্যতম গোলরক্ষক যাকে আমি মৌসুমের টিকিট পাওয়ার পর প্রথম দেখার সুযোগ পাই।/

পড়াশুনার পাশপাশি গাড়ি দিয়ে দুধ বিক্রি করেন তিনি। ঘণ্টা হিসেবে কাজ করতেন পোপ। মাঝে মাঝে খুচরা বিক্রিও করতেন। কে জানতো সেই পোপ আজকের বিশ্বকাপে খেলবে?/

ভাগ্য বদলেছে দুধ বিক্রেতার। সাফল্যের সিঁড়ি বেয়ে এবার বিশ্বকাপে। নিকোলাস ডেভিড পোপকে খুব শিগগিরই চিনবে বিশ্ব ফুটবল। ঠিক দশ বছর আগেও দুধ বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করতেন পোপ। অথচ এখন তিনি ইংল্যান্ড জাতীয় দলের ফুটবলার। এবার খেলতে যাচ্ছেন রাশিয়া বিশ্বকাপে।/

ইংল্যান্ডের কোচ গ্যারেথ সাউথগেটের বিশ্বকাপ স্কোয়াডে নিক পোপের নাম অন্তুর্ভুক্তি ছিল বড় একটি চমক। চলতি মৌসুমে বার্নলির হয়ে অসাধারণ নৈপুণ্য দেখান পোপ। এ নৈপুণ্যেই যেন বদলে পেলেন পোপ। তার দল বার্নলিও ৫২ বছরের ভেতর প্রথম সুযোগ পেয়েছে ইউরোপা লিগে।/

পোপ বলেন, আমি আসলেই যোগ্য ছিলাম না। সত্যি কথা- তখন আমার কাছে এত সময় ছিল না। নিজের লাগাম টেনে ধরে দলের সেরা খেলোয়াড় হওয়ার জন্য তখন লড়াই করতে হতো। আমি তেমনটা ছিলাম না। এখন আমার জীবনটা যেভাবে পরিবর্তন হয়েছে সেটা আমার জীবনের সেরা ঘটনা। কোনোভাবেই তা অস্বীকার করতে পারবো না।/

বারি থেকে চার্ল্টন অ্যাথলেটিক ক্লাবে ২০১১ সালে যোগ দিয়ে পরবর্তী পাঁচ বছরে ৬টি ভিন্ন ক্লাবে লোনে খেলেন পোপ। এর ভেতর সাবেক ক্লাব বারিতেও একবার ধারে খেলেছেন। ২০১৬ সালে বার্নলিতে যোগ দিলেও তার প্রিমিয়ার লিগে অভিষেক হয় ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বর মাসে। বার্নলির প্রধান গোলরক্ষক টম হিটনের ইনজুরিই যেন তার সৌভাগ্যের দুয়ার খুলে দেয়!/

২০১৭-১৮ মৌসুমে বার্নলির হয়ে লিগে ৩৫টি ম্যাচ খেলে ১১টি ম্যাচেই ক্লিন শিট রাখতে সক্ষম হয়েছেন পোপ। গোল হজম করেছেন মাত্র ৩৫টি! তার এমন পারফরম্যান্সই নজর কাড়ে ইংলিশ কোচের। জাতীয় দলের হয়ে ৭২ ম্যাচ খেলা অভিজ্ঞ জো হার্টকে রেখে বিশ্বকাপ দলে জায়গা করে নেন এক সময়ের দুধ বিক্রেতা নিক পোপ।/

জীবিকার তাগিদেই ফুটবল থেকে সরে যেতে থাকেন পোপ। ২০০৮ সালে ইংল্যান্ডের ওয়েস্ট সাফক কলেজে বিজনেস মার্কেটিংয়ে কোর্স করেন। /