বাংলাদেশের স্কোয়াডে পরিবর্তনের ইঙ্গিত, আইসিসির নিয়ম কী বলছে?

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের জন্য ১৫ সদস্যের দল ঘোষণা সপ্তাহ দুয়েক আগেই করেছিলো বিসিবি। সেই বিশ্বকাপের প্রস্তুতি নিতেই দুবাই গিয়ে চলেছে নানা পরীক্ষা-নিরিক্ষা।

যেখানে স্ট্যান্ডবাই থাকা পেসার শরিফুল ইসলাম ম্যাচে সুযোগ পেয়েছেন। তখনই প্রশ্ন আসে চূড়ান্ত দল ঘোষণার পর কেন বাজিয়ে দেখা হচ্ছে অন্যদের?

বাংলাদেশের ভারপ্রাপ্ত টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক নুরুল হাসান সোহান বলেছিলেন, বিশ্বকাপে আমাদের ১৮-২০ জনের একটি স্কোয়াড আছে। এদের মধ্যে যে কারোরই দলে ঢোকার সুযোগ আছে। কারণ এটি একটি বড় আসর।

বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন বলেছেন, আমার ধারণা এখন খেলোয়াড়দের বাজিয়ে দেখা হচ্ছে। তিন জাতি সিরিজে নিউজিল্যান্ডে গিয়ে আরও পরীক্ষা-নীরিক্ষা করবে। এরপরই দল ঠিক করবে।

দু’জনের কথায় এটা পরিষ্কার বাংলাদেশ দলে আসতে পারে একাধিক পরির্তন। সেটা চূড়ান্ত হবে নিউজিল্যান্ড তিন জাতি সিরিজের পরেই। ক্রিকেট পাড়ায় গুঞ্জন

আছে তিন ম্যাচে ব্যর্থ সাব্বির রহমান আর অলরাউন্ডার সাইফউদ্দিনে নাকি সন্তুষ্ট নয় টিম ম্যানেজমেন্ট। তাদের জায়গায় আসতে পারেন সৌম্য সরকার কিংবা শরিফুলরা। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে দল ঘোষণার পর কীভাবে পরিবর্তন সম্ভব?

আইসিসির নিয়ম অনুযায়ী, দলে পরির্তনের সুযোগ আছে। সরাসরি সুপার টুয়েলভ খেলা আট দল ১৫ অক্টোবর পর্যন্ত যে কোনো পরিবর্তন আনতে পারবে দলে।

এর জন্য আইসিসির কোনো অনুমতি নিতে হবে না। কিংবা এজন্য কারো ইনজুরিতে পরার দরকার নাই। কিন্তু ১৫ অক্টোবরের পর যদি পরির্তন আনতে হয় সে ক্ষেত্রে টেকনিক্যাল কমিটির অনুমোদনের প্রয়োজন পরবে।

তাইতো বাংলাদেশ দলে কার কপাল পুড়ছে কিংবা শেষ মুহূর্তে কে পাবেন টিকিট, তা জানতে অপেক্ষা করতে হবে তিন জাতি সিরিজের শেষ পর্যন্ত।