শতভাগ পাস ২৯৭৫ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে, ৫০ বিদ্যালয়ে সবাই ফেল

চলতি বছর মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) ও সমমান পরীক্ষায় ২ হাজার ৯৭৫টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শতভাগ পরীক্ষার্থী পাস করেছে। আর ৫০ বিদ্যালয়ের

কোনো শিক্ষার্থী পাস করতে পারেনি। গত বছর এই শূন্য পাস করা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ছিল ১৮টি। অর্থাৎ এবার কোনো পরীক্ষার্থী পাস না করা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংখ্যা বেড়েছে।

এর আগে ২০২১ সালের এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিল ২৯ হাজার ৩৫টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, যার মধ্যে শতভাগ পাস করেছিল ৫ হাজার ৪৯৪টি প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা।

এতে দেখা যায় গত বছরের তুলনায় এবার শতভাগ পাস করা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা কমেছে ২ হাজার ৫১৯টি। শতভাগ ফেল করা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা বেড়েছে ৩২টি। এবার ৩ হাজার ৭৯০টি কেন্দ্রে পরীক্ষা হয়।

সোমবার দুপুরে গণভবন থেকে অনলাইনে সংযুক্ত হয়ে ফলের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এরপর দুপুর ১টায় শিক্ষামন্ত্রী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে সংবাদ সম্মেলনে বিস্তারিত ফল তুলে ধরেন।

এতে দেখা যায়, নয়টি সাধারণ শিক্ষাবোর্ড, মাদরাসা ও কারিগরি শিক্ষাবোর্ড মিলে এবার পাসের হার ৮৭ দশমিক ৪৪ শতাংশ। গত বছর এর হার ৯৩ দশমিক ৫৮ শতাংশ ছিল।

এছাড়া এবার মোট জিপিএ-৫ পেয়েছে ২ লাখ ৬৯ হাজার ৬০২ জন পরীক্ষার্থী। এর মধ্যে সাধারণ শিক্ষা বোর্ডে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২ লাখ ৩৩ হাজার ৭৬৩ জন।

এবারও জিপিএ-৫ পাওয়ার দিক থেকে ছেলেদের চেয়ে এগিয়ে মেয়েরা। এবার ছাত্রীদের মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ লাখ ৪৮ হাজার ৪৪৬ জন। অন্যদিকে ছাত্রদের মধ্যে ১ লাখ ২১ হাজার ১৫৬ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে।

এছাড়া বোর্ডগুলোর পাসের হার বিশ্লেষণে দেখা গেছে, ঢাকা বোর্ডে ৯০ দশমিক ০৩ শতাংশ, ময়মনসিংহ বোর্ডে ৮৬ দশমিক ৭, বরিশাল বোর্ডে ৮৯ দশমিক ৬১, চট্টগ্রাম বোর্ডে ৮৭ দশমিক ৫৩, কুমিল্লা বোর্ডে ৯১ দশমিক ২৮, দিনাজপুর

বোর্ডে ৮১ দশমিক ১৪, যশোর বোর্ডে ৯৫ দশমিক ৩, রাজশাহী বোর্ডে ৮৫ দশমিক ৮৭, সিলেট বোর্ডে ৭৮ দশমিক ৮২, মাদরাসা বোর্ডে ৮২ দশমিক ২২ আর কারিগরি বোর্ডে পাসের হার ৮৪ দশমিক ৭ শতাংশ।