উত্তেজনাপূর্ণ প্রথমার্ধে গোল পায়নি বেলজিয়াম ও ক্রোয়েশিয়া

দ্বিতীয় রাউন্ডে ওঠার জন্য এই ম্যাচ জিততেই হবে বিশ্বকাপের ডার্ক হর্স বেলজিয়ামকে অন্যদিকে ক্রোয়েশিয়ার ড্র করলেই চলবে। এমন

সমীকরণকে মাথায় নিয়ে দুই দল একে অপরের বিপক্ষে খেলতে নামে। ইউরোপিয়ান দুই জায়ান্টের খেলায় মুগ্ধতা ছড়ালেও গোল পায়নি কোনদলই। ফলে গোলশূন্য থেকেই প্রথমার্ধ শেষ করে তারা।

১০ বারের মোকাবেলায় বেলজিয়ামের বিপক্ষে মাত্র দুইবার পরাজিত হয় ক্রোয়েশিয়া। এমন দাপুটে পরিসংখ্যান নিয়ে বেলজিয়ামের বিপক্ষে শুরু থেকে খেলতে থাকে গতবারের রানার্সআপ দলটি।

ম্যাচের ১০ মিনিটে এগিয়ে যাওয়ার দারুণ সুযোগ পায় বেলজিয়াম। কিন্তু কারাসকোর শট রুখে দেন ক্রোয়েট গোলরক্ষক। ১৩ মিনিটে বেলজিয়ামের হয়ে ম্যাচের সহজ সুযোগ মিস করেন মার্টেনস। ডি ব্রুইনের বাড়ানো বলে গোলরক্ষককে একা পেয়েও বল গোলবারের উপর দিয়ে মারেন তিনি।

এর ঠিক ৩ মিনিট পরেই ম্যাচের সবচেয়ে আলোচিত মুহূর্তটি আসে বেলজিয়ান ডি বক্সের ভেতর। ক্রোয়েশিয়ার ফ্রি কিক থেকে বল ডি বক্সের ভেতর ঢুকলেও সেখানে ক্রামারিচকে ফাউল করে বসেন কারাসকো। রেফারি পেনাল্টির সিদ্ধান্ত দেন। কিন্তু ভিএআর এর মাধ্যমে দেখা যায় পেনাল্টির আগেই অফসাইডে ছিলেন লভরেন। যে কারণে পেনাল্টি বাতিল করে দেন রেফারি।

৩৩ মিনিটে আবারো গোলের সুযোগ পায় ক্রোয়েশিয়া। এবার লিভায়ার শট গোলবারের দিয়ে চলে যায়। ম্যাচ শেষের ১ মিনিট আগে সসার শট আবারো চলে যায় গোলবারের বাইরে দিয়ে ফলে গোলশূন্য ড্র অবস্থাতেই বিরতিতে যায় দুই দল।